এই গরমে চুলের রুক্ষতা দূর করার ১২টি কার্যকরী কৌশল

0
843
গরমে চুলের যত্ন
Print Friendly, PDF & Email

এই গরমে ধুলো বালির পরিমাণ বেশি থাকায় চুল সহজে নোংরা হয়। প্রচন্ড রোদের তাপে আবহাওয়া শুষ্ক হয়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে চুলেও আসে রুক্ষতা। এই সময় একে বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমান কমে যায়, ফলে চুলও আর্দ্রতা হারিয়ে রুক্ষ হয়ে যায়। তাই চুলের যত্ন নিতে হবে খুব সচেতন ভাবে। চলুন চুলের রুক্ষতা দূর করতে জেনে নেই ১২টি কৌশল-

১. লেবু

চুলের যত্নে লেবুও ভীষণ কার্যকর। ক্লিনজার হিসেবে লেবু খুব ভালো কাজ করে। মাথার ত্বকের ব্যাকটেরিয়া দূর করতেও লেবু সাহায্য করতে পারে। এজন্য এক মগ পানিতে একটি লেবু রস চিপে নিন। সেই পানি চুলে ভালো করে লাগিয়ে রাখুন কিছুক্ষণ। তারপর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে নিন। তৈলাক্ত চুল ঝরঝরে করে তুলতে লেবুর রসের তুলনা নেই।

২. প্রাকৃতিক তেলের ম্যাসাজ

এই সময় রুক্ষ চুলকে বশে রাখতে তেলের প্রয়োজন যেমন আছে, তেমনই চুলে তেল মেখে রাস্তায় বের হলে মাথায় আরও বেশি ধুলোবালি বসে যাবে। তাই শ্যাম্পু করার আগের দিন রাতে তেল গরম করে মাথার তালুতে লাগিয়ে ম্যাসাজ করুন। চুলে লাগানোর দরকার নেই। এরপর গরম পানিতে নরম তোয়ালে ভিজিয়ে মাথায় ভাল করে জড়িয়ে ঘুমোতে যান। পরদিন অবশ্যই শ্যাম্পুর করে চুল শুকিয়ে রাস্তায় বেরোবেন।

৩. আমলকি

শ্যাম্পু থেকে শুরু করে চুলের বিভিন্ন প্রসাধনেও ব্যবহৃত হচ্ছে আমলকি। এতে আছে ভিটামিন সি। যা মাথার ত্বকে তৈরি যে কোন ইনফেকশন সারাতে সহায়তা করে। চুলকে করে তোলে সুন্দর ঝরঝরে। খুশকির দৌরাত্ম্য দমনেও আমলকি উপকারি। আমলকি কেটে দুধে ভিজিয়ে রাখুন ঘণ্টা কয়েক। ভিজিয়ে রাখা আমলকি বেটে পেস্ট তৈরি করুন। তারপর সেই পেস্ট চুলের গোড়ায় ঘষে ঘষে মাখুন। এক ঘণ্টা রেখে দিন। তারপর ধুয়ে ফেলুন।

৪. খাওয়া দাওয়া

চুলের স্বাস্থ্য বজায় রাখতে শারীরিক স্বাস্থ্যের যত্ন নেওয়া খুব প্রয়োজন। তাই খাওয়া দাওয়ার ওপর বিশেষ নজর দিন। খাদ্য তালিকায় প্রচুর মৌসুমী ফল, শাকসবজি রাখুন। তেল জাতীয় খাবার কম খান। প্রচুর পানি পান করুন।

৫. চুল নিয়মিত পরিষ্কার

চুলের যত্নের প্রথম ধাপ হলো চুল নিয়মিত পরিষ্কার রাখা। তাই নিয়মিত শ্যাম্পু করা প্রয়োজন। রোজকার শ্যাম্পু বদলে ফেলে ব্যবহার করুন ক্রিম বেসড বা বিয়ার বেসড শ্যাম্পু। এই শ্যাম্পু চুল পরিষ্কার রাখার পাশাপাশি আর্দ্রতাও বজায় রাখবে। শ্যাম্পু কিন্তু সবসময় মাথার তালুতে লাগাবেন। চুলে লাগাবেন না। ধোয়ার সময় ফেনাতেই চুল ধুয়ে যাবে।

৬. প্যাক 

ঘরোয়া পদ্ধতিতে সপ্তাহে অন্তত একদিন চুলে প্যাক লাগান। হেনা একেবারেই করবেন না বা ডিম জাতীয় কন্ডিশনার এড়িয়ে চলুন। এই ধরণের জিনিস চুল আরও রুক্ষ করে তোলে। তার বদলে লাগাতে পারেন কলা ও মধুর প্যাক। এই প্যাক চুল নরম করবে। প্যাক কিন্তু সব সময় চুলে লাগাবেন। কখনই মাথার তালুতে লাগাবেন না।

৭. স্পা

চুলের যত্ন নিতে মাসে ১ থেকে ২ বার স্পা করা খুব জরুরি। পার্লারে না গিয়েও বাড়িতে স্পা কিট কিনে এনে স্পা করতে পারেন। বাড়িতে করলে মাসে দু`বার ও পার্লারে গিয়ে করালে মাসে অন্তত একবার স্পা করান।

৮. চুল ট্রিম করুন

চুলের ডগা ফাটা থাকে তাহলে ট্রিম করে পছন্দ মত হেয়ারস্টাইল করে নিন। কারণ ডগা ফাটা থাকলে চুল আরও বেশি রুক্ষ হয়ে যাবে। ফলে চুল ঝড়ে যাবার প্রবণতা অকাংক্ষিত ভাবে বেড়ে যাবে।

৯. কালার ও কেমিক্যাল

যদি চুলে কালার করা থাকে তাহলে নিয়মিত যত্ন নেওয়া জরুরি। যদি কালার করা না থাকে তাহলে এখন নতুন করে না করাই ভাল। কেমিক্যাল থেকেও এই সময় দূরে থাকুন যাতে চুল বেশি শুকিয়ে না যায়।

১০.স্ট্রেটনার ও ড্রায়ার 

স্ট্রেটনার বা ড্রায়ার চুলে সরাসরি হিট দেয়। যার ফলে রুক্ষ তো হয়ে যায়ই সাথে সাথে চুলের অন্যান্য ক্ষতিও হয়। যদি চুল সুন্দর স্টাইল করে কেটে রাখেন তাহলে স্ট্রেটনার চালানোর দরকারই পড়ে না। তবে যদি চুল আগে থেকেই স্ট্রেট করা থাকে তাহলে অবশ্যই দ্বিগুণ যত্ন নিতে হবে। তেমনই চুল ড্রায়ার দিয়ে না শুকিয়ে পিঠের ওপর বিছিয়ে হাওয়ায় শুকিয়ে নিন।

১১. চুল বেধে রাখুন

এই সময় রাতে শোওয়ার সময় চুল বেধে রাখুন যাতে চুলের ডগা বেশি ঘষা না লাগে। রাস্তায় বেরনোর সময়ও চুল বেধে বের হওয়া ভাল। এতে ধুলোবালি কম লাগবে। যদি কোনও পার্টিতে খোলা চুলের স্টাইল করতে চান তাহলে অবশ্যই রাস্তায় চুল কোনও ক্লিপ দিয়ে হালকা আটকে রাখুন। পুরো খুলে রাখবেন না। পার্টিতে গিয়ে চুল খুলে ব্রাশ করে নিন।

১২. ক্যামোমিল চা

ক্যামোমিল চা স্বাস্থ্যের জন্য যেমন উপকারী, তেমনি চুলের জন্যও। এক ধরনের ফুলের নির্যাস থেকে তৈরি এই বিশেষ চাপাতা মাথার রুক্ষ ত্বককে সতেজ করে এবং চুল মোলায়েম করে তুলতে পারে। এজন্য ক্যামোমিল চা ফুটিয়ে ছেঁকে পানিটুকু শ্যাম্পুর মতো চুলে ঘষে মেখে ধুয়ে নিন। অথবা পানিতে চা পাতা ভিজিয়ে রেখে, সেই পানি দিয়েও চুল ম্যাসেজ করতে পারেন।

এসি অফিসে কাজ করলে কখনই চুল খুলে রাখবেন না। এসিতে চুল বেশি শুষ্ক হয়ে যায়। তবে ভেজা চুল বাধবেন না। এই কৌশল গুলো অনুসরণ করুন উপকার পাবেন নিশ্চিত।

আরও জানুন » গরমে ত্বক ও চুলের যত্ন »

Comments

comments